ফ্রান্সে শ্রেণি-সংগ্রাম

অভিবাদন জানাই শ্রমিক শ্রেণির নতুন প্রজন্মকে!

ফ্রান্সের চিরাক/ভেলপাঁ/সারকোজি সরকার গায়ের জোরে চাকরি সংক্রান্ত  এক জঘন্য কালাকানুন চালু করেছে যার নাম হল সি.পি.ই.(প্রথম নিয়োগ চুক্তি বা First Employment / job Contract)। এর বিরুদ্ধে সেদেশের ছাত্রসমাজ  যে  বিশাল বিক্ষোভ-আন্দোলন গড়ে তুলেছে তা বতর্মান সময়ে আন্তজার্তিক ভাবে শ্রমিকশ্রেণির   পুনরায় জেগে উঠতে থাকা  সংগ্রামগুলোর অংশ হিসেবেই দেখতে হবে।   বিভিন্ন শ্রেণির মিলিজুলি করে চলা আগেকার যেসব ছাত্র  আন্দোলন তার সাথে এর কোন মিল নেই। এ সংগ্রাম সমগ্র শ্রমিক শ্রেণির শ্রেণি-সংগ্রামের অংশ। পুঁজিবাদের অথর্নৈতিক আক্রমনের বিরুদ্ধে, নতুন প্রজন্মের সামনে নিশ্চিত দিশাহীন ভবিষ্যতের বিরুদ্ধে এ আন্দোলন প্রথম থেকেই দৃঢ়ভাবে শ্রমিক শ্রেণির লাইনকেই আঁকড়ে ধরেছে। ছাত্র-ছাত্রীদের নিজস্ব প্রাতিষ্ঠানিক          দাবি-দাওয়া

( যেমন, এল. এম. ডি. ডিপ্লোমা[1] প্রত্যাহারের দাবি)কে  পাশে সরিয়ে রেখে তারা এমন এক দাবিকে সামনে এনেছে যা প্রকৃত পক্ষে সমগ্র শ্রমিক শ্রেণির সাধারণ দাবি: “ সি.পি ই. বাতিল কর! কমর্ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা, বেকারি, ছাঁটাই বন্ধ কর!”

এই আন্দোলনের প্রধান শক্তি হল সংগ্রামের মধ্যে ক্রমবধর্মান সক্রিয় সংহতি। উচ্চ বিদ্যালয় এবং অন্যান্য ছাত্র-ছাত্রীরা এটা বুঝতে পেরেছে যে: একতাই শক্তি; তারা শ্রমিক সংগ্রামের সেই পুরোনো শ্লোগানকেই  বাস্তবায়িত করছে: ‘তোমার তরে সকলে আমরা, প্রত্যেকে আমরা সবার তরে’। এই উপলব্ধিই তাদের সংগ্রামের পিছনে সমস্ত শিক্ষক এবং শিক্ষাকমীর্দের সামিল করতে সক্ষম করেছে, সকলকে টেনে নিয়ে গেছে ছাত্র-ছাত্রীদের স্ব-সংগঠন জেনারেল এ্যাসেমব্লি(এ.জি.)তে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা এই জেনারেল এ্যাসেমব্লিকে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে,  তাদের পিতামাতা, অন্যান্য শ্রমিক, এমনকি পেনশনভোগিদেরজন্যও (বিশেষতঃ প্যারিস III Censier-এ)  উন্মুক্ত ক’রে রেখেছে।   সংগ্রামকে কিভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় তা তারা শিখতে চাইছে। এক প্রকার ‘সাজেশন বক্স’ নিয়ে তারা ঘুরছে রাস্তায়, সুপারমাকের্টে, বিভিন্ন কমর্ক্ষেত্রে,ইন্টারনেটে: সবর্ত্রই তাদের বক্তব্য : বলুন কিভাবে আমাদের এই আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়, ‘আসুন আমাদের পাশে দাঁড়ান’! এভাবেই সংগ্রামের সবাপের্ক্ষা সচেতন এবং দৃঢ়চিত্ত বাহিনী সমগ্র শ্রমিক শ্রেণির সংহতিকে বিকশিত ও নিশ্চিত করা এবং সংগ্রামকে ব্যাপকতর ক’রে তোলার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।

  সংগ্রামের প্রাণকেন্দ্র গণ সাধারণ সভা   ‘(mass general Assemblies)’

 

৭ই মারচ্-২০০৬’র মিছিলের পরেপরেই ছাত্রদের গন সাধারণ সভার বিস্তার ঘটতে থাকে সারা প্যারিস তথা অন্যান্য জায়গার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। ‘লৌহ-মানব’ ভিলপাঁ(ফ্রান্সের বতর্মান প্রধানমন্ত্রী) নিজের অবস্থানে অনড় থাকেন কেননা সি.পি.ই. পালির্য়ামেন্টে পাশ হয়েছে--- আর এটা তো ঠিক যে ‘রাস্তা দেশ শাসন’ করবে এটা হয় না! হ্যাঁ, ২০০৩-এ তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী রাফ্যারিন একথাই বলেছিলেন যখন পেনশন-প্রথার সংস্কারের নামে   জীবনের ৪০টা বছর ধ’রে শোষিত হওয়ার পর অবসর-প্রাপ্ত শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনাটুকুকেও কেড়ে নেওয়ার কালাকানুন চালু করতে গিয়ে বিপুল শ্রমিকের প্রতিরোধের মুখে পড়েছিল ফ্রান্সের শাসক শ্রেণি। ছাত্রসমাজ বশ্যতা স্বীকার করেনি।বিশেষতঃ রাজধানীতে, লেকচার হলগুলো ,যেখানে এ.জি.’র সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে, সেখানে উপচে পড়ছে ভীড়, মিছিলের সংখ্যা হুহু ক’রে বাড়ছে। ছাত্রৱা গণমাধ্যমগুলোকে তাদের নীরবতা ভাঙতে এবং মিথ্যাচারণ বন্ধ করতে বাধ্য করছে।

৮ই মারচ্ থেকে ১৮ই মারচ্,২০০৬ এই দশটা দিন ফ্রান্সের শাসক-শ্রেণির ‘দুনিয়া কাঁপিয়ে’ দিয়েছে! ছাত্রসমাজের ক্রমাগত বেশিবেশি ক’রে সংগঠিত হয়ে ওঠার এক এবং একমাত্র অভিমুখ হল: সমগ্র শ্রমিকশ্রেণির সাথে সংহতি এবং ঐক্য গড়ে তোলা। 

প্রলেতারিয়েতের প্রতিরোধ আন্দোলনের এই  দিকদিশা রাজধানীতে ছড়িয়ে পড়েছে Censier  বিশ্ববিদ্যালয় থেকে, যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা এই সংগ্রামের বিস্তার এবং কেন্দ্রীকরণের (centralisation) ক্ষেত্রে সবার্পেক্ষা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

জেনারেল এ্যাসেমব্লীতে সমস্ত, এমনকি পথচলতি শ্রমিকদের দুহাত বাড়িয়ে স্বাগত জানানো হয়েছে; আলোচনায় অংশ নিতে , তাদের অভিজ্ঞতার কথা বলার জন্য আহ্বান করা হয়েছে। যাঁরাই এই সাধারণ গণ সভায় ছিলেন তাঁরাই অবাক হয়েছেন শ্রেণি সংগ্রামের ক্ষেত্রে এই নতুন প্রজন্মের সৃজনশীল ক্ষমতার  প্রয়োগ দেখে! বিশেষতঃ Censier-এ অলোচনার গভীরতা, স্ট্রাইক কমিটি দ্বারা নিবার্চিত সদস্যদের দায়িত্ববোধ, তাদের আন্দোলন সংগঠিত করার সক্ষমতা, এ্যাসেমব্লী পরিচালনার দক্ষতা, যারা বলতে চায় তাদের সকলকে বলবার সুযোগ ক’রে দেওয়া,  যুক্তি প্রতিযুক্তির মাধ্যমে,  যারা আন্দোলনকে ভেস্তে দিতে চায় তাদের মুখোশ খুলে ফেলার এবং এ ব্যাপারে অন্যদের সচেতন করার প্রয়াস ইত্যাদি সব কিছুই নিশ্চিতভাবে শ্রমিকশ্রেণির নতুন প্রজন্মের প্রাণবন্ততা এবং সক্ষমতাকে নিশ্চিতরূপে প্রমান করে।

খোলা ভোটের ভিত্তিতে নিবার্চিত এবং এ.জি. কতৃর্ক ন্যস্ত দায়িত্ব পালন করতে পারা না পারার ভিত্তিতে যেকোন সময় প্রত্যাহারযোগ্য প্রতিনিধিদের নিরলস প্রয়াসের সাহায্যে ছাত্ররা সবর্দাই এ.জি.-র সাবর্ভৌম চরিত্র বজায় রাখার পক্ষে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। । ইউনিয়নস্থ এবং ইউনিয়নের বাইরে থাকা ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে থেকে  সভাপতিত্ব করবার জন্য প্রতিদিন সম্পূরণো নতুন   টিম নিবার্চন করা হচ্ছে।

দায়িত্বের যথাযথ বন্টন, সংগ্রাম পরিচালনার কেন্দ্রীকরণ, বিভিন্ন অংশের কাজ ও দায়িত্বকে একসূত্রে গাঁথা এবং সমগ্র আন্দোলনের ওপর সচেতন নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য প্যারিস III-Censier-এ স্ট্রাইক কমিটি   এ.জি.-তে নিবার্চনের মাধ্যমে  কতকগুলো কমিশন তৈরি করেছে, যথা: প্রেস,  (বৃহত্তর বিষয় সমূহ নিয়ে চিন্তা করার জন্য) এ্যানিমেশন এ্যান্ড রিফ্লেক্সন্, ওয়েলকাম এ্যান্ড ইনফরমেশন কমিশন ইত্যাদি।

এ.জি.-র এই সত্যিকারের ‘গণতন্ত্র’ এবং সংগ্রামের কেন্দ্রীকরণের এই প্রক্রিয়াই ছাত্রদের সবর্দাই কখন কী সিদ্ধান্ত নিতে হবে তা ঠিক করতে সাহায্য করেছে এবং এইসব ক্ষেত্রে তাদের  প্রধান লক্ষ্য থেকেছে কিভাবে শ্রমিকদের কমর্ক্ষেত্র অব্দি এই আন্দোলনকে ছড়িয়ে দেওয়া যায়।

 এই পন্থা-পদ্ধতি এবং লক্ষ্যই তাদের এই সংগ্রামের আগুনকে সমগ্র শ্রমিকশ্রেণির মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে

ছাত্র-ছাত্রীরা স্পষ্টই বুঝতে পেরেছে যে তাদের আন্দোলনের সাফল্যের চাবিকাঠি আছে শ্রমিকদের হাতে, (যেমনটি Île de France Coordination-র ৮ই মারচ্’র মীটিঙে একজন ছাত্র বলেছেন: ‘যদি আমরা বিচ্ছিন্ন থাকি, তাহলে ওরা আমাদেরকে ওদের খাদ্য বানিয়ে ছাড়বে। ভিলপাঁ সরকার যত অনমনীয় থাকছে ছাত্ররাও তত বেশি ক’রে দৃঢ়প্রত্যয়ী হয়ে উঠছে, বাড়ছে তাদের নাছোড়বান্দা মনোভাব!  সারকোজির কঠোর পদক্ষেপ শ্রমিকদের ক্ষোভ এবং ‘ভোটার’দের অনাস্থাই শুধু বাড়িয়ে তুলছে। শ্রেণি-সংগ্রামে অভ্যস্ত শ্রমিকেরা (এবং বুজোর্য়াদের সবথেকে কম বোকা অংশটা) ভালোভাবেই জানে যে যদি ‘ইতর-উশৃঙ্খল’ শাসকশ্রেণি তাদের এই অযৌক্তিক ‘যুক্তি’ আঁকড়ে থাকে  তাহলে এই আন্দোলন  (সাধারণ ধমর্ঘট নয় যেমনটি কিছু ইউনিয়ন এবং এ্যানাকির্স্টরা করার কথা বলছেন) ‘মাস-স্ট্রাইক(mass strike)’ –এর রূপ নেবে।

সারা দেশজুড়ে শ্রমিকদের সঙ্গে সংহতি স্থাপনের প্রয়াস, সাধারণ সভায় বিপুল সংখ্যায় শ্রমিক-প্রতিনিধিদের উপস্থিতি[2] এবং আন্দোলনে তাদের সামিল করার ও শ্রমিকদের স্বতঃস্ফূত্তর্ভাবে তাতে যোগদান ইত্যাদি দেখায় যে আন্দোলনের শুরু থেকেই এর গতি প্রকৃতিগতভাবেই  মাস স্ট্রাইকের রূপ নেওয়ার দিকেই। ছাত্ররা ইউনিয়নগুলোর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ‘ব্লকেজ’[3]-এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে এবং শ্রমিকেরা ছাত্র-প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা না ক’রে  কোন কথা বলতে অস্বীকার করেছে। প্যারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘Little Sioux’[4]রা   আশ্চরয উদ্ভাবনী ক্ষমতার সাহায্যে এই ব্লকেজকে অতিক্রম করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

শ্রমিকদের সক্রিয় যোগদান সুনিশ্চিত করার জন্য ছাত্র-ছাত্রীরা যথেষ্ট সৃজনী ক্ষমতার পরিচয় দিয়েছে: Censier একধরণের কারডবোরড্ বক্স তৈরি করেছে, যার নাম   ‘চিন্তা-বাক্স’; কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে যেমন প্যারিসে Jussieu –এ ছাত্র-ছাত্রীরা এই বাক্স নিয়ে রাস্তায় নামছে—পথচারী মানুষের কাছে জানতে কেন তারা বিক্ষুব্ধ, আন্দোলনের ব্যাপারে  তাদের মতামত লিখে বাক্সের মধ্যে ফেলতে বলা হচ্ছে কেননা তাদের মতে ‘ সব মতামতই লক্ষ্য করা প্রয়োজন।’ বিশেষতঃ, শ্রমিকদের , যারা পথচলতি বা যারা তাদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করতে আসছে তাদের মতামত বা চিন্তা ভাবনাকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে সংগ্রহ করা হচ্ছে যাতে তারা সেগুলো সংগ্রাম বিকাশের কাজে ব্যবহার করতে পারে। তাদের অভিজ্ঞতাকে ধন্যবাদ, তারা বাছাই করছে সেই সব ‘ভালো আইডিয়া’ যেগুলো সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে! আর বাতিল করছে ‘বাজে আইডিয়া’গুলো যেগুলো তারা মনে করছে সংগ্রামকে দুবর্ল করবে এবং অন্তঘার্ত করবে আর ছাত্রদের রাষ্ট্রীয় দমন-পীড়ণের শিকারে পরিণত করবে; যেমন, Sorbonne   বিশ্ববিদ্যালয় ‘দখল’ করার ভাবনা।

 অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে, বিশেষতঃ আন্দোলনের সামনের সারিতে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেকচার হলগুলো শ্রমিক, বেকার এমনকি পেনশন-জীবিদের জন্যও উন্মুক্ত ক’রে দেওয়া হয়েছে; সেখানে তাদের কমর্জীবনের অভিজ্ঞতা বলতে বলা হয়েছে; পুরোনো প্রজন্ম নতুনদের  আর নতুন প্রজন্ম পুরোনোদের কাছে শিখবার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে! পরিণত হয়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের মধ্যে পুরোনো প্রজন্ম আবিষ্কার করছে তাদের ফেলে আসা যৌবনের দিনগুলি! বিভিন্ন প্রজন্মের মধ্যে দেওয়া-নেওয়া, শেখা-শেখানোর এ যেন এক অভিস্রবণ প্রক্রিয়া যা সমগ্র আন্দোলনে এক নতুন গতি দান করেছে।। সংগ্রামের বিশালতম শক্তি, অসাধারণ বিজয় যেন সংগ্রাম নিজেই!

এই বিজয় হল  সমস্ত সেক্টরের, সমস্ত প্রজন্মের, সমগ্র   শ্রমিক-শ্রেণির সংহতি এবং ঐক্য।

এ বিজয় অজির্ত হয়েছে পালার্মেন্টে নয়, হয়েছে ফ্রান্সের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর লেকচার হলগুলোতে; দুভার্গ্যজনকভাবে এ. জি.-তে সরকার নিযুক্ত গুপ্তচরেরা এই বিজয় বুঝতে পারেনি, তারা কিস্যু বোঝেনি! তারা মিস্টার ভিলপাঁকে কোন ‘আইডিয়া’ দিতে অপারগ।ভিলপাঁ/সারকোজি/শিরাক সব আইডিয়ার বাইরে চলে গেছে! আর তাই  বুজোর্য়া গনতন্ত্রের আসল স্বরূপ প্রকাশ করতে তারা বাধ্য হচ্ছে, হাতে তুলে নিতে হচ্ছে ‘গনতান্ত্রিক’ হাতিয়ার: দমন, নিপীড়ণ।

পুলিশের হিংসাত্মক আচরণ পরিষ্কার প্রমান করে দিচ্ছে বুজোর্য়াদের ভবিষ্যৎলে আর কিছু নেই।  

এই ছাত্র আন্দোলন নেহাতই সিপিই’র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ নয়; ৭ই মারচের জমায়েতে  Paris-Tolbiac University’র এক শিক্ষক  বলেছিলেন: ‘ সিপিই একটা বাস্তব এবং বিশেষ অথর্নৈতিক আক্রমণ শুধু নয়, এটা একটা প্রতীকও বটে।’ সত্যিই, এটা পুঁজিবাদী অথর্নীতির দেওলিয়াপনারই প্রতীক।

  পুলিশের  ‘ভুল’ আচরণের,যা ২০০৫-এর শরতে দুটি নিরপরাধ যুবকের মৃত্যুর কারণ হয় (  একজন ‘নাগরিক’ তাদের ‘চোর’ ব’লে অভিযুক্ত করে এবং পুলিশ তাদের হত্যা করে), পরোক্ষ প্রতিক্রিয়া এই আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে প্রতিফলিত হয়। এক মানসিক বিকারগ্রস্ত (সারকোজি)কে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ক’রে বুজোর্য়ারা বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিতে অক্ষম; এরা ভুলে গেছে অন্যান্য ঘটনার পাশপাশি, ১৯৮৬[5] তে  Malik Oussékine ’র মৃত্যু শ্রমিকদের সংগ্রামকে আরো বেশি সক্রিয়  এবং উত্তপ্ত ক’রে তোলে। আজ Sorbonne য়ুনিভাসির্টির ছাত্র-ছাত্রীরা, যারা মিথ্যাবাদী Mr de Robien’র দাবীমত বই পোড়াতে যায়নি গিয়েছিল শুধুমাত্র এ.জি.’র সভা করতে , তাদের ওপর পুলিশি নিপীড়ণ ছাত্রসমাজের নাছোড়বান্দা মনোভাবকেই আরো শক্তিশালী করেছে। সমস্ত বুজোর্য়া আর তাদের মিডিয়া সকলে মিলে  ঝুড়ি ঝুড়ি মিথ্যা ব’লে চলেছে---- ছাত্ররা নাকি ‘গুন্ডামো’ করছে অথবা ‘ভদ্দরলোক’ সারকোজির ভাষায় এরা নাকি ‘উচ্ছৃঙ্খল ছোটোলোক’!

কিন্তু এরা এতটাই ডাহা মিথ্যা বলছে যে শ্রমিকেরা তা মোটেই বিশ্বাস করে নি। উল্টে বুজোর্য়ার গুন্ডাবাহিনী যে নিপীড়ণ চালিয়েছে তাই দিয়েই পুঁজিবাদী ব্যবস্থা আর তার ‘মহান গণতন্ত্রের’ হিংসাত্মক রূপটি পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে। এ এক এমন ব্যবস্থা যেখানে লক্ষ লক্ষ শ্রমিককে ছুঁড়ে ফেলা হয় রাস্তায়, ৪০ বছর ধ’রে শোষন করার পর যেখানে পেনশনজীবি শ্রমিকদের দারিদ্রের অন্ধকারে নিক্ষেপ করে সরকার, যেখানে পুলিশের লাঠি আর গুলি দিয়ে ‘আইন-শৃংখলা’ চাপিয়ে দেওয়া হয় আমাদের ওপর। অন্যদিকে ভিলপাঁরা কালাবোবা সেজে থাকে, এদের আচরণ সেই পুরোনো রসিকতাটাকেই মনে করিয়ে দেয় ---- একনায়কতন্ত্র মানে ‘বোবা হয়ে থাক’, গনতন্ত্র মানে ‘ যা বলবি বল, কান করেছি ঢোল’। তবে ভিলপাঁ/সারকোজি/সিরাক ত্রয়ী এক নতুন শ্লোগান আমদানী করেছে---‘তোমার যা খুশি বল এবং মুখ বন্ধ কর’।

  ক্ষমতায় থাকার দৌলতে মিডিয়া এইসব ভদ্দরলোকদেরই তাঁবেদারি করছে বিশেষত মতাদশর্গত বিষ ছড়ানোর সেরা মাধ্যম টিভি নিউজ চ্যানেলগুলো তাদের কেনা গোলাম! এরা মানুষকে ভুল বোঝানোর জন্য পুরো আন্দোলনটাকে  শুধুমাত্র   লক্ষ্যহীন কতকগুলো হিংসাত্মক ঘটনা হিসাবে তুলে ধরছে যাতে শ্রমিকদের কে এর থেকে বিচ্ছিন্ন করা যায়, তাদের সচেতনতাকে নষ্ট করা যায় । কিন্তু যতই তারা এই চেষ্টা করছে ততই তারা আমাদের ঘৃণাকে তীব্রতর ক’রে তুলছে। 

ভবিষ্যত নিমার্ণের চাবিকাঠি যাদের হাতে সেই শ্রমিকশ্রেণির নতুন প্রজন্ম আর তার সবথেকে সচেতন অগ্রণী বাহিনী  পুলিশ-রাষ্ট্রের উসকানি এবং ইউনিয়নবালাদের নিজেদের খপ্পরে রাখার  কৌশলের ফাঁদে পা দেয় নি। নিবির্চার এবং মরীয়া হিংসাত্মক ক্রিয়াকলাপে লিপ্ত হবার  বুজোর্য়া পন্থা তারা প্রত্যাখ্যান করেছে , তারা মফস্বলের যুবকদের  অথবা দুচারটে এ্যানারকিস্ট ও লেফ্টিস্টদের মত জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেবার পন্থাকে  কখনোই গ্রহণ করেনি।

 ছাত্র-আন্দোলনের পুরোধা এইসব শ্রমিক-শ্রেণির সন্তানরাই একমাত্র গোটা সমাজের সামনে এক নতুন ভবিষ্যতের দিশা তুলে ধরতে পারে। তার নিজ শ্রেণি-শক্তির প্রতি আত্মবিশ্বাস, তার ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গী, তার ধৈরযো এবং যেমন লেনিন বলেছিলেন তার ‘রসবোধ’ শ্রমিকশ্রেণির এই ভবিষ্যত দিশাকে বিকশিত ক’রে তুলতে পারে।   শ্রমিকশ্রেণির এক সুনিদির্ষ্ট ইতিহাস-সম্মত ভবিষ্যত আছে কিন্তু বুজোর্য়াদের কোন ‘ভবিষ্যত’ নেই--- তারা তাই কেবল আতঙ্কগ্রস্তই হতে পারে, লক্ষ্যহীন নিবির্চার হিংসার পথ ছাড়া তাদের আর কোন পথই খোলা নেই।

 ছাত্রদের সিপিই প্রত্যাহারের দাবির প্রতি মিস্টার ভিলপাঁর অনমনীয় মনোভাব আরো একটা ব্যাপার পরিষ্কার ক’রে দেয় যে বুজোর্য়ারা কখনই ব্যালোট বক্সের          

চাপে তাদের  ক্ষমতা ছেড়ে দেবে না। যদি বিশ্বকে পুঁজিবাদের হাত  থেকে মুক্ত  করতে  হয়, গড়তে হয় এক প্রকৃত বিশ্ব-মানব-সমুদায় তাহলে ভবিষ্যতে শ্রমিকশ্রেণি বাধ্য হবে তার নিজ ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালনের স্বারথে রাষ্ট্রের হাতের ক্রীড়ণক দমন-পীড়ণের ব্যবস্থা ও তাদের ভয়ংকর আক্রমণ  ও নিপীড়ণের বিরুদ্ধে বল প্রয়োগ করতে। তবে প্রলেতারিয় শ্রেণি–হিংসার সঙ্গে  দাঙ্গাকারী মফস্বলের যুবকদের কিংবা সন্ত্রাসবাদের কোন সম্পরকোই নেই(যদিও বুজোর্য়ারা উল্টোটাই বলে কেননা এর ফলে তারা শ্রমিক,ছাত্র এবং অবশ্যই প্রকৃত কম্যুনিস্টদের অত্যাচার করাটাকে যুক্তিসিদ্ধ হিসাবে দেখাতে পারে)।

আন্দোলনকে ভেতর থেকে ধ্বংস করা এবং এর প্রলেতারিয়- চরিত্রকে নষ্ট করার লক্ষ্যে শাসক শ্রেণির পাল্টা আক্রমণ     

 অথর্নৈতিক তথা পুলিশি আক্রমণ নামিয়ে আনার জন্য তাদের প্রথম ফিকির হল এমন একটা সময় বাছা যেসময় ছাত্র-ছাত্রীদের ছুটি থাকবে ফলে তাদের বিক্ষোভ দানা বাঁধতে পারবে না; কিন্তু উল্টো হল : আমরা দেখলাম তাদের সক্রিয়তা অব্যাহত এবং ছুটির সময় তা অনেক বেড়ে গেল। স্বাভাবিকভাবেই, আন্দোলনের শুরু থেকেই ইউনিয়নবালারা ছিল এবং যথাসাধ্য চেষ্টাও চালিয়ে যাচ্ছিল কিভাবে মুভমেন্টের বারোটা বাজানো যায়। কিন্তু তারা ধরতেই পারে নি  শেষ পযর্ন্ত বেশিরভাগ শহরের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে তাদের কোন নিয়ন্ত্রণই তারা রাখতে পারবে না।

উদাহরণস্বরূপ, প্যারিসে প্যারিস III Censier’র বাইরে কয়েকহাজার স্টুডেন্ট সবাইমিলে একসঙ্গে  জমায়েতে যাবে ব’লে জড়ো হয়েছিল; যখন তারা আবিষ্কার করল যে CGT মিছিলে নেতৃত্ব দেবে ব’লে  আগেভাগেই তাদের  ব্যনার ট্যনার খুলে রেডি হয়ে মিছিলের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে তখন  যারা যেভাবে পেরেছে – হেঁটে, মেট্রোয়, সাইকেলে মানে যার যা ছিল সে তাই কাজে লাগিয়ে জমায়েতের সামনে গিয়ে পৌঁছেছে, তারপর মেলে ধরেছে তাদের নিজস্ব ঐক্যতান-খচিত  পতাকা; তাতে লেখা আছে:

ইউনিভাসির্টি এবং স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী, বেকার শ্রমিক, সরকারি,বেসরকারি ও আংশিক সময়ের শ্রমিক---- সকলের লড়াই আজ একটাই: বেকারি এবং অনিশ্চিত-কাজের বিরুদ্ধে লড়াই!

CGT ‘র অবস্থাটা হাস্যকর হয়ে দাঁড়ায়। স্টুডেন্টদের বিপুল উচ্ছসিত কলরোলের পিছনে তাদের নানা বিভাগীয় পতাকা যথা: “CGT Engineers”, “CGT RAPT”[6] ইত্যাদি আর প্রতিটি পতাকার পিছনে হাতেগোনা কয়েকজন, তারা সম্পূর্ণ ছত্রভঙ্গ। তাদের বাহিনীকে চাঙ্গা করার জন্য Maurice Thorez[7]  -এর স্ট্যালিনিস্ট পারটির কর্মীরা কিছু গরম-গরম শ্লোগান দেবার চেষ্টা করল, লাউডস্পীকারের মাধ্যমে ছাত্রদের শ্লোগান আর বক্তব্যকে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করল শেষপযর্ন্ত সিজিটি এবং “ফ্রেঞ্চ কম্যুনিষ্ট” পারটির ক্যাডাররা ‘ইন্টারন্যাশানাল’ গেয়ে সকলকে তাদের সাথে যুক্ত করার চেষ্টাও করল--- কিন্তু বুড়ো স্টালিনিস্ট ডাইনোসোরগুলোর এই ক্যারিকেচার তাদের আরো বেশি হাস্যাস্পদ ক’রে তুলল; সত্যি বলতে কি, জমায়েতের এবং পথ-চলতি অনেক লোক  হেসে গড়িয়ে পড়ছিল! এমনকি এই মন্তব্যও শোনা গেল যে  ওদের আচরণ নাকি  Spitting Image[8] -র মতোই দেখাচ্ছে।

ওই একই রাতে সিজিটি ইউনিয়নের নেতা Bernard Thibault টিভি সাক্ষাতকারে বলেছে: এটা সত্য যে আজকের জমায়েতে এমন  একটা  ব্যাপার ছিল যা আমরা আগে থেকে আন্দাজ করতে পারিনি।”

ইউনিয়নগুলো যতই আন্দোলনকে তাদের হাতের মুঠোয় আনবার জন্য জঘন্য সব কলা-কৌশল নিয়েছে ততই তাদের মুখোস খুলে পড়েছে। Mr de Robien ঘৃণার বশে এই সত্যটা বুঝতে পারছেন না: তিনি দেখাতে চাইছেন Sorbonne বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টরা হঠকারিতা করেছে (এটা প্রমানের জন্য বুজোর্য়া ম্যানিপুলেসনে স্পেশ্যালিস্টদের ছিঁড়ে রাখা কয়েকটা বই তিনি দেখাচ্ছেন যেন বা এইসব ছাত্রদেরই কীরতি!) , তিনি বলেছেন: “এই আন্দোলন মুষ্টিমেয় কিছু জনের দ্বারা পরিচালিত।” একজন ইউনিয়ন নেতা হিসাবে তার পক্ষে  এভাবে দেখাই স্বাভাবিক, কেননা এই বিপুল মানবসমাজকে গতিশীল রাখে যে বিশাল উৎপাদক শ্রেণি সেটা তার চোখে পড়ে না, চোখে পড়ে শুধু সেই মুষ্টিমেয় শাসক শ্রেণির প্রতিনিধি, যাদের দ্বারাই দুনিয়াটা পরিচালিত হচ্ছে ব’লে মি. রবীন মনে করেন!

শুধু ৭ইমার্চেই নয়, সিজিটি এবং এফ.ও.[9], ১৪ই মারচের ছাত্র-ছাত্রীদের স্বতঃস্ফূর্ত্ত মিছিলেও তাচ্ছিল্যের পাত্র হয়েছে: এজন্যই কিছু বুদ্ধিমান টিভি সাংবাদিক মন্তব্য করেছে: ‘ইউনিয়নগুলো তাচ্ছিল্যের পাত্রে পরিণত হয়েছে।’ যে সংগ্রামী যুব-ছাত্ররা তাদের উপহাসের পাত্র ক’রে তুলেছে তাদের এবং ১৬ই মারচের জমায়েতে ছাত্রদের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে অংশ নেওয়া শ্রমিকদের প্রতি   ঘৃণা তারা গোপন রাখতে পারেনি; ফলতঃ  সমগ্র জনসমক্ষে,  ক্যামেরার সামনে মিস্টার সারকোজি এ্যান্ড কোঙের সাথে ওদের আঁতাত দিনের আলোর মত স্পষ্ট হয়ে গেছে। 

ওইদিন প্যারিসে সিজিটি (Stalinist party ‘র সাথে সংশ্লিষ্ট)  এবং এফ.ও. ( ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর সিআইএ’র টাকায় তৈরি ইউনিয়ন)’র প্রতিনিধিরা মিছিলের পুরোভাগে থেকে সি.আর.এস.-এর[10]সামনা করছিল। হঠাৎ দেখা গেল ওদের ইউনিয়ন কডর্ন ম্যাজিকের মতন হাওয়া আর পরিকল্পিতভাবে  আন্দোলনকে বেপথু করতে  সেখানে ছেড়ে রাখা হল  কিছু পেটি বুজোর্য়া দাঙ্গাবাজকে  যারা Sorbonne-মুখি মিছিলে  ঢুকে প’ড়ে পুলিশের সঙ্গে চোর-পুলিশ খেলায় মেতে উঠল।   যাঁরা এই নতুন হিংসাত্মক  দৃশ্য দেখলেন তাঁদের প্রত্যেকেই বলেছেন যে ভিলপাঁ/সারকোজিরা যে তাদের দমন-পীড়ণের যন্ত্রটা কাজে লাগাতে পারল আর ভরতি করতে পারল তাদের জেলখানা (Black Marias) তার কৃতিত্বটা পুরোপুরি ইউনিয়ন প্রতিনিধিদেরই প্রাপ্য।

সবোর্পরি, টিভি নিউজ ২৪ ঘন্টা এদিনের হিংসাত্মক ঘটনার ছবি দেখিয়ে দেখিয়ে  মানুষের মনে ভয় ঢুকিয়ে দেবার চেষ্টা চালিয়েছে যাতে ১৮ই মারচের মিছিলে যেতে লোকে ভয় পায়। অনেক শ্রমিক এবং যুবক যারা এই মিছিলে যোগ দেবে ভেবেছিল তারা হয়তো ভয় পেয়ে যোগ নাও দিয়ে থাকতে পারে।

টিভি চ্যানেলগুলো এই সুখবর প্রচার করেছে (১৬ই মারচে প্রচারিত নিউজ অনুযায়ী) যে আন্দোলন ‘স্তিমিত হয়ে আসছে”।

যারা এই আন্দোলনের মৃত্যু চায়, তারা  সারকোজির সাগরেদ, এরা তারা যারা  চায় আন্দোলনকে ইউনিয়নের নিয়ন্ত্রণে আনতে। আর শ্রমিকশ্রেণি একথা বুঝতে শুরু করেছে। বড় বড় বুলির আড়ালে, ইউনিয়ন আসলে সরকারের চামড়া  বাঁচাতেই আগ্রহী। UMP[11]’র ব্রন্টোসোরগুলোর[12] পাশাপাশি স্ট্যালিনিস্ট পারটি আর তার সিজিটি ইউনিয়নের ঠাঁই হওয়া উচিত জুরাসিক পার্কে। সামাজিক আন্দোলনের আগুন নেবানোর কাজে নিযুক্ত ‘সামাজিক দমকলবাহিনী’ ইউনিয়নের পতাকাগুলো ১৬ই মারচ্ মানসিক-বিকারগ্রস্ত ভিলপাঁ/সারকোজিরা নিজেরাই পুড়িয়ে দিয়েছে ---সবার কাছে ধরা পড়ে গেছে তাদের আসল রূপ; আর তাই এরা এখনো অব্দি সামাজিক আন্দোলনের এই আগুন নেবানোর ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হয়েছে।

  শ্রমিকেরা সংগ্রামী স্টুডেন্টদের সমথর্ন করেছে কারণ তারা দেখেছে ইউনিয়নগুলো কিভাবে গণ সাধারণ সভার(মাস জেনারেল এ্যাসেমব্লীজ) বিষয়ে গণমাধ্যমগুলোকে চুপ থাকতে সাহায্য করেছে।

৭ই মারচের মিছিল-জমায়েতের পর থেকে ইউনিয়নগুলো উঠে পড়ে লেগেছে যাতে যেন তেন প্রকারেণ শ্রমিকদেরকে নিষ্ক্রিয় ক’রে রাখা যায়, কোনমতেই শ্রমিকেরা যেন ছাত্রদের সঙ্গে যোগ না দিতে পারে। তারা চেষ্টা করেছে যে ক’রেই হোক যেন এই আন্দোলনকে ভেতর থেকেই নষ্ট ক’রে দেওয়া যায়। তারা তাদের বুলিকে ঝাঁঝাঁলো করেছে; তারা দাবি তুলেছে আপোষরফার বৈঠকে যাওয়ার আগেই যেন সিপিই প্রত্যাহার ক’রে নেওয়া হয়(এর মানে এই নয় যে  শ্রমিকদের অগোচরে তারা তলায় তলায় আপোষরফার চেষ্টা চালাচ্ছে না)।   সরকারকে ‘বাধ্য’ করার জন্য  তারা এমনকি ‘সাধারণ ধমর্ঘট’ –এর ডাক দেবার হুমকিও দিয়েছে। তারা প্রকাশ্যে  ঘোষণা করেছে যে ছাত্রদের  সঙ্গে  শ্রমিকদের সংহতি হোক , শ্রমিকরা সক্রিয়ভাবে এই আন্দোলনে সামিল হোক তারা তা চায় না।  তাদের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গেছে, আর তাই উপায়ান্তর না দেখে কিছু অতি-মাথাগরম ছেলেপুলেকে উসকে দিচ্ছে যাতে হিংসাত্মক ঘটনাগুলো অব্যাহত থাকে।

এই রাজনৈতিক সংকটের কবল থেকে ফরাসী বুজোর্য়ার বেরোবার একমাত্র উপায় হল যে কোন উপায়ে ফরাসী প্রজাতন্ত্রের এই বিভ্রান্তিকর অবস্থাটাকে আড়াল করা, এর   গনতান্ত্রিক ভাবমূর্তিটাকে  বজায় রাখা। আর, এজন্য প্রয়োজনীয় মতলবটি মিস্টার ভিলপাঁকে রূপোর থালায় পরিবেশন করেছেন  PS/PCF/Greens[13]-রা;   সিপিই’র বিরুদ্ধে তাদের বক্তব্যটি কন্সটিটিউসন্যাল কাউন্সিলের[14] বিচারের অধীন করার দাবীতে এরা সকলেই ঐক্যবদ্ধ।  সোস্যালিস্ট পারটির এই ‘সাহায্যের হাত’ কাজে লাগিয়ে ‘১২জন বিজ্ঞ ব্যক্তি’[15]-র কাছে সরকার বিষয়টি বিচারের আবেদন রাখতে পারে এবং এতে বিষয়টি আপাতত ঝুলে থাকবে; সেই সুযোগে রাফারিনের নীতিতে অবিচল থাকা যাবে যে ‘রাস্তা দেশ শাসন করে না’; এর সঙ্গে যোগ ক’রে বলা যায়: ‘দেশ শাসন করে কন্স্টিটিউসন্যাল কাউন্সিলের   মাত্র ১২ জন পেনশনভোগী।’

 এই সংগ্রামের সবথেকে বড় বিজয় সংগ্রাম নিজেই

সরবোন ইউনিভাসির্টির ছাত্রদের এবং তাদের কমরেডদের (যারা তাদের জন্য খাদ্য নিয়ে এসেছিল তাদের)  ‘ঠেঙিয়ে ঠান্ডা’ করতে গিয়ে সারকোজি প্যানডোরার বাক্সটি খুলে ফেলেছে, আর  তার ভেতর থেকে ভিলপাঁ/সারকোজি সরকার বের ক’রে এনেছে শ্রমিকদের ‘প্রতারক-বন্ধু’টিকে: এ হল ইউনিয়ন।

সুতরাং দুনিয়ার শ্রমিক এজন্য ফরাসী সরকারকে ধন্যবাদ জানাতে পারে।  চ‌রম দক্ষিণ-পন্থি Le Pen[16]  -র অভ্যুথ্থানের ভয় দেখিয়ে লাল-সাদা-নীল শাসকশ্রেণি দুনিয়ার সবথেকে অপরিণতবুদ্ধি দক্ষিণ-পন্থীদেরকে ক্ষমতায় নিয়ে আসতে পেরেছিল: এমন এক দক্ষিণ-পন্থী যারা এমনসব নীতি নিয়েছে যা কেবল   কোন ব্যানানা রিপাবলিক’ –এই শোভা পায় ।

এই সংগ্রাম এখনও অব্দি যতটুকু এগিয়েছে তাতে বলা যায় যে বিশ্ব শ্রমিক শ্রেণির কাছে এ আন্দোলন অলরেডি বিজয় লাভ করেছে। নতুন প্রজন্মকে ধন্যবাদ যে শ্রমিকশ্রেণি ইউনিয়নের ‘বাধা’ ভেঙে বেরিয়ে আসতে পেরেছে। প্রলেতেরিয়েতের প্রতিটি সেক্টর, বিশেষত তাদের তরুন অংশটি এমন এক মুল্যবান অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছে যা তাদের চেতনায় এক গভীর ছাপ রেখে যাবে।

এই অভিজ্ঞতা সমগ্র বিশ্ব প্রলেতারিয়েতের। গণমাধ্যমগুলোর বয়কট সত্বেও তাদের সমান্তরালে কাজ ক’রে চলা প্রচার মাধ্যম, সরকারের বশীভূত নয়,অপেশাদার এমন সব লোকজনের ক্যমেরা এবং অন্যান্য ‘সরকারী লাগামের বাইরে’ থাকা রেডিও , আর অবশ্যই বিপ্লবীদের নিজস্ব প্রেস দুনিয়াজুড়ে প্রলেতারিয়েতের কাছে এই খবর পৌঁছে দেবেই যাতে ক’রে শ্রমিকশ্রেণি এই অভিজ্ঞতাকে তাদের নিজেদের অভিজ্ঞতারই অংশ ক’রে তুলতে পারে,বুঝতে পারে প্রলেতারিয়েতের বিশ্বব্যাপী সংগ্রামের এটা মাত্র একটা দৃশ্য।  2003 থেকে ধারাবাহিকভাবে সারা পৃথিবীতেই যে সংগ্রাম চলছে এই আন্দোলন তারই অংশ; আর এইসব আন্দোলন পরিষ্কারভাবে দেখিয়ে দিচ্ছে  শিল্প–প্রধান দেশগুলোতে শ্রমিকশ্রেণি আবার এগিয়ে আসছে, ১৯৮৯’র ইস্টার্ণ ব্লক এবং তথাকথিত সমাজতান্ত্রিক ও শ্রমিকশ্রেণির রাষ্ট্রগুলোর পতনের পর বুজোর্য়াদের ছড়ানো বিভ্রান্তি  তারা কাটিয়ে উঠছে। এইসব সংগ্রামের অন্যতম বৈশিষ্ট হল শ্রমিকদের মধ্যে সংহতিবোধের পুনজার্গরণ। বিশ্ব-পুঁজিবাদের দুটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দেশ—ইউ.এস এবং ইউনাইটেড কিংডম-এ শ্রমিক সংগ্রামের মর্মবস্তু  হয়ে উঠেছে:সংহতি। যেমন ক্রিসমাস২০০৫’র ঠিক আগে নিউ ইয়র্কের ট্রান্সিট শ্রমিকেরা নিজেদের জন্য নয়, স্ট্রাইক করেছিল ভবিষ্যতে যারা ওই চাকরিতে যুক্ত হবে তারা যেন বতর্মান শ্রমিকদের মত একই অবসরকালীন সুযোগ সুবিধা পায় এই দাবিতে। একইভাবে, ২০০৫-এর শরতে, লন্ডনের হিথরো এয়ারপোরটে Gate Gourmet কোম্পানী তাদের অধীনস্থ ক্যাটারিং বিভাগের শ্রমিকদের ওপর   ঘৃণ্য আক্রমণ  নামিয়ে আনলে শ্রমিকেরা তার বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফূর্ত্ত ধমর্ঘটে সামিল হয়; আর ওই এয়ারপোরটের যাত্রীদের মালপত্র তোলা-নামানো ইত্যাদি কাজের সাথে যুক্ত শ্রমিকেরা ওই স্ট্রাইকে সামিল হয়, তাদের পাশে দাঁড়ায়।

 ফ্রান্স এবং অস্ট্রিয়ায়   পেনশন সংক্রান্ত সুযোগ সুবিধা কেড়ে নেওয়ার সরকারী কালা-কানুনের বিরুদ্ধে ২০০৩-এর আন্দোলন (দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এত মানুষের জমায়েত আর হয়নি) থেকে শুরু, যারপর থেকে অবিরাম একটার পর একটা আন্দোলন, কোন না কোন দেশে হয়েই চলেছে আর সে আন্দোলনের  ক্রমাগত বিকশিত হয়ে ওঠার এক প্রবণতা যেন শুরু হয়ে গেছে। ২০০৪-এ  জামার্নিতে গাড়ি কারখানার শ্রমিকদের(বিশেষত ডেইমলার-ক্রাইসলার এবং ওপেলে) ছাঁটাই বিরোধী আন্দোলনে শ্রমিকদের সংহতি, ২০০৫-এর ডিসেম্বরে স্পেনের বারসিলোনায় সিয়েট (SEAT) কারখানায় ইউনিয়নের বাইরে এবং তার বিরুদ্ধে   শ্রমিকদের আন্দোলন[17] ইত্যাদি এই প্রবণতারই দৃষ্টান্ত।

সুতরাং ফ্রান্সের ছাত্র আন্দোলন এই ঐতিহাসিক বাঁকের পযার্য়ে চলতে থাকা আন্দোলনগুলোর অংশ হিসাবেই দেখতে হবে, যে-আন্দোলনগুলোর ফলশ্রুতিতেই মানব প্রজাতি  পুঁজিবাদী বরবরতার গোলকধাঁধা থেকে অব্যাহতি পেতে পারে। নতুন প্রজন্ম, যারা শ্রমিকশ্রেণির দিশায় আজ তাদের সংগ্রাম পরিচালনা করছে, তারাই এই উজ্জ্বল ভবিষ্যতের  দ্বার উন্মুক্ত করছে। আমরা তাদের ওপর এই  গভীর আস্থা রাখতে পারি যে এই গ্রহের সবর্ত্র, তারা এক নতুন পৃথিবী গড়বার  প্রস্তুতি চালিয়ে যাবে ----- এমন এক পৃথিবী যেখানে কোন প্রতিযোগিতা নেই, লাভ-লোকসান নেই, নেই শোষন, দারিদ্র আর নিমর্ম সন্ত্রাস, আতঙ্ক, হিংসা, যুদ্ধ, নেই এই ভয়ংকর নৈরাজ্য!

স্বাভাবিক ভাবেই পুঁজিবাদ উচ্ছেদের এই রাস্তা দীর্ঘ, সমস্ত রকমের প্রতিকূলতায় ভরা তবু  এই বাধার পাহাড় সরানোর কাজ শুরু হয়ে গেছে, শুরু হয়ে গেছে সে পথে আমাদের সুমহান যাত্রা।     

ইন্টারন্যাশানাল কম্ম্যুনিস্ট কারেন্ট


 


[1] অধুনা এই  ডিপ্লোমা প্রথাটি ইউরোপিয়ান সিস্টেম হিসেবে ফ্রান্সে জোড় ক’রে চাপানো হয়েছে যার ফলে অনেক ছাত্র ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

[2] উদাহরণস্বরূপ, Tours- এ, ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্রপাতি ব্যবহার ক’রে ১০,০০০ লিফলেট ছাপিয়ে শ্রমিক-এলাকায় বিলি করেছে, যার প্রধান লক্ষ্য হল শ্রমিকদের এই আন্দোলনে সামিল করা ।

 

[3] এটা কথার খেলা; আসলে ইউনিয়নগুলো চায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে পিকেটিং করতে এবং ছাত্ররা এর বিরোধী।

[4] এটি বাংলায় অনুবাদের  অসাধ্য ; তবে মোটামুটি রেড ইন্ডিয়ানদের এক বিশেষ হস্তশিল্প ধারার উল্লেখ ক’রে এখানে যা বোঝাতে চাওয়া হয়েছে তা হল ছাত্রদের সাংঘাতিক উরবর মস্তিষ্ক যার সাহায্যেই তারা এমন কৌশল উদ্ভাবন করছে যাতে এই ইউনিয়নের ব্লকেজ পন্থাকে ভেস্তে দেওয়া যায়--- এটা উক্ত শিল্প নৈপুন্যের সাথেই তুলনীয় ! 

 বিশ্ববিদ্যালয়-সংস্কার’-এর বিরুদ্ধে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিবাদ  আন্দোলন চলাকালীন পুলিশের গুলিতে একজন ছাত্র নিহত হয়।[5]

[6] Confédération Générale du Travail সংক্ষেপে সিজিটি: এটি অনেক পুরোণো ইউনিয়ন এবং এখনও স্ট্যালিনবাদী ফরাসী কম্যুনিষ্ট পারটি দ্বারা পরিচালিত।

[7]  এই সেই লোক যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ধমর্ঘটী খনি শ্রমিকদের এবং Renault শ্রমিকদের বলেছিল  যেহেতু ধমর্ঘট হল মনোপলি ট্রাস্টগুলোর হাতিয়ার সুতরাং শ্রমিকগণ, তোমরা যে যার কাজে ফিরে যাও। 

[8] ফ্রান্সে রাতের দিকে টিভি নিউজে একটি ব্যাঙ্গাত্মক অনুষ্ঠান দেখানো হয় যার ফরাসী নাম“Les Guignols de l’Info". ইউনিয়নবালা ও স্ট্যালিনবাদী দলগুলোর এদিনের কান্ডকারখানা সেই স্যাটায়ারের মতোই হাস্যকর হয়ে দাঁড়িয়েছিল!

[9] Force Ouvrière.

[10] ফ্রান্সের রায়ট পুলিশ ।  পুরো নাম Compagnies Républicaines de Sécurité

[11] Jacques Chirac-র অধীন বর্ত্তমান শাসক দল। পুরো নাম: Union pour un Mouvement Populaire (নামের বাহারখানা দেখুন!)

[12] বিশাল চতুষ্পদী তৃণভোজী  ডাইনোসোর যাদের জুরাসিক পরবর্তি যুগে উত্তর আমেরিকায় দেখা যেত।

[13] সোস্যালিস্ট পারটি, ফ্রেঞ্চ কম্যুনিস্ট পারটি এবং গ্রীণ পারটি।

[14] এদের মতলবটা হল কন্স্টিটিউসন্যাল কাউন্সিল যদি ঘোষণা করে যে সিপিই অসাংবিধানিক তাহলে  সরকারের মুখরক্ষা হয়, সেক্ষেত্রে কাউন্সিলের দোহাই দিয়ে সিপিই  প্রশ্নটা মুলতুবি রাখতে  সরকারের অসুবিধা হয় না!

[15] এই বারোজন হল উক্ত কন্স্টিটিউসন্যাল কাউন্সিলের সদস্য।

[16] ফ্যাসিবাদি ন্যাশনাল ফ্রন্ট  দলের নেতা  যে গত রাষ্ট্রপতি নিবার্ছনে প্রথম দফায় সিরাকের ঠিক পরের স্থানে ছিল।

[17] যেখানে ইউনিয়ন শ্রমিকদের পিছন থেকে ছুরি মারার চক্রান্ত করে মালিকের সাথে ‘লজ্জাজনক’ চুক্তি ক’রে ৬০০ শ্রমিককে ছাঁটাই করার ব্যবস্থা করে।