স্ব-পরিচালনা : শ্রমিকদের স্ব-শোষণ

Self-management: workers’ self-exploitation

জাতিরাষ্ট্র (nation-state) নিজেই এখন এমন এক অত্যন্ত সংকীর্ণ কাঠামোয় পরিণত যে উৎপাদিকা শক্তির অব্যাহত বিকাশ ঘটাতে সে আর সক্ষম নয় । পৃথক পৃথক প্রতিটি শিল্পোদ্যোগের ক্ষেত্রে তাই এই সত্য আরো অনেক বেশি করে প্রযোজ্য । পুঁজিবাদের সাধারণ নিয়মগুলোর খপ্পর থেকে এইসব শিল্পোদ্যোগের সত্যিকার কোন স্বাতন্ত্র্য কোনদিনই ছিল না। পতনশীল অবস্থায় এরা আরো বেশি নির্ভরশীল হয়ে পড়ে ঐসব নিয়ম ও রাষ্ট্রের ওপর । এই কারণেই গত শতাব্দীতে স্ব-পরিচালনা (অর্থাৎ পুঁজিবাদী সমাজের মধ্যেই শ্রমিকদের দ্বারা উদ্যোগ ধান্দার পরিচালনা)-র পক্ষে প্রুধো-পন্থীদের (Proudhonist) প্রচার যদিও আসলে পেটিবুজোর্য়া কল্পনাবিলাস মাত্রই ছিল আজ তা শ্রমিকদের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়ানোর পুঁজিবাদী প্রচেষ্টা ছাড়া আর কিছুই নয়

নিজেদের শোষণ নিজেরাই সংগঠিত করে সংকটগ্রস্ত শিল্পোদ্যোগকে বাঁচিয়ে তোলার দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিতে শ্রমিকশ্রেণীকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য পুঁজির অর্থনৈতিক হাতিয়ারের ভূমিকাই পালন করে এটা । এটা প্রতিবিপ্লবের রাজনৈতিক হাতিয়ারের ভূমিকাও পালন করে যেহেতু:

  • কারখানা ,এলাকা ও বিভাগ (sector) গত ভাবে শ্রমিক শ্রেণীকে আবদ্ধ ও বিচ্ছিন্ন করার মাধ্যমে বিভাজিত করে ।
  • পুঁজিবাদী অর্থনীতি টিকিয়ে রাখার দায়দায়িত্বের বোঝা চাপিয়ে দেয় শ্রমিকশ্রেণীর কাঁধে যখন কিনা তার সম্পূর্ণ উচ্ছেদই হয়ে উঠেছে একমাত্র কর্তব্য ।
  • মুক্তির সম্ভাবনা সুনিশ্চিত করার জন্য অপরিহারয মৌলিক কর্তব্য অর্থাৎ পুঁজিবাদী রাষ্ট্রযন্ত্রের ধ্বংস সাধন এবং সারা দুনিয়া জুড়ে শ্রেণী একনায়কত্ব প্রতিষ্ঠার পথ থেকে বিচ্যুত করে শ্রমিকশ্রেণীকে ।

পুঁজিবাদী নিয়ম নীতির কাঠামোর মধ্যে তো নয়ই ,তাকে ধ্বংস করেই এবং সারা দুনিয়ার ভিত্তিতেই কেবল উৎপাদনব্যবস্থার আসল পরিচালনার দায়দায়িত্ব নিতে পারে শ্রমিকশ্রেণী ।
স্ব-পরিচালনার সমর্থনে যে কোনও রাজনৈতিক অবস্থান (এমন কী তা ‘শ্রমিকশ্রেণীর অভিজ্ঞতা' অথবা ‘শ্রমিকদের মধ্যে নতুন সম্পর্ক গ'ড়ে তোলা'র নামে হলেও ) আসলে কিন্তু পুঁজিবাদী সর্ম্পক টিকিয়ে রাখতেই সাহায্য ক'রে চলেছে ।